হস্তমৈথুনের সেই দৃশ্যটি!


লাস্ট স্টোরিজ’ নামের ওয়েব সিরিজে স্বমহনের দৃশ্যে অভিনয় করে ঝড় তুলেছেন কিয়ারা আদবানির। তারপর থেকেই তিনি আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে। নির্মাতারাও সুন্দর মুখশ্রীর এই অভিনেত্রীকে নিয়ে আগ্রহী হয়ে উঠছেন। সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলেও কিয়ারাকে এই প্রশ্নের উত্তর দিতেই হচ্ছে যে কীভাবে তিনি এত সাবলীলভাবে ওই দৃশ্যটি করেছিলেন। সম্প্রতি একই প্রশ্নের মুখোমুখি হলেন তিনি নেহা ধুপিয়ার অনুষ্ঠানেও। সেখানে তিনি জানান, হস্তমৈথুনের দৃশ্যে শুটিং করতে তার মোটেও অস্বস্তি হয়নি। স্ক্রিপ্টের প্রয়োজন অনুযায়ীই শুটিং হয়েছে। এছাড়া সেই দৃশ্যের জন্য কীভাবে প্রস্তুতি নিয়েছিলেন কিয়ারা সেটাও জানিয়েছেন তিনি।

কিয়ারা বলেন, ‘আসলে আমাকে কী কী করতে হবে, করণ জোহর সবই বুঝিয়ে দিয়েছিলেন। শুটিংয়ের সময় খুব ছোট্ট ইউনিট ছিল। কিন্তু আমি খুব নার্ভাস ছিলাম। এতটাই নার্ভাস ছিলাম যে গুগলে সার্চ করেছিলাম, কীভাবে ভাইব্রেটার ব্যবহার করা হয়। করণ বলেছিলেন, সিরিয়ালসি শট দিতে। যাতে এক্সপ্রেশনে মনে হয়, আসলে আমি ভাইব্রেটার ব্যবহার করছি। করণ জোহর পরিচালিত ‘লাস্ট স্টোরিজ’ ওয়েব সিরিজে কিয়ারা এক নববধূর চরিত্রে অভিনয় করেন। যিনি স্বামীর সঙ্গে যৌন মিলনে অখুশি। তাই হস্তমৈথুনের মাধ্যমে নিজের যৌনতার চাহিদা মেটান।

সঙ্গী কি চায়, ভালবাসা নাকি শারীরিক সম্পর্ক?
প্রেম, ভালবাসা, যৌনতা সবসময় একইসূত্রেই গাঁথা। এক কথায় বলা যায় একে অপরের পরিপূরক। তবে একটি সম্পর্কে এর সব কিছুই থাকাটাই জরুরি। শুধুমাত্র শারীরিক সম্পর্ক বা যৌনতার চাহিদার কারণে সম্পর্ক থেকে ১০০ হাত দূরে থাকুন।সঙ্গী যদি শারীরিক চাহিদার আগ্রহ বেশি দেখান তবে তাকে আগেই ত্যাগ করুন। আসলে এখনকার সময়ের সম্পর্কগুলোতে ভালবাসা না চাহিদা বোঝাটাই দায়। তবুও এর মাঝেও বোঝার কিছু উপায় আছে। জেনে নিন উপায়গুলো

অন্তরঙ্গতা নেই: শুধুমাত্র যৌনতা যেখানে মূল চাহিদা, সেখানে অন্তরঙ্গতা নাও থাকতে পারে। প্রেমিক আপনার ছোঁয়া পেতে চাইবেন, আপনার হাত ধরে বসে থাকবেন বা বুকে জড়িয়ে নিতে চাইবেন। এগুলো অন্তরঙ্গতার নিশানা।প্রতিশ্রুতি নেই: এ ধরনের সম্পর্কে কোনো পক্ষ থেকে কোনো প্রতিশ্রুতি নাও থাকতে পারে। আপনাকে বিয়ে করবেন তিনি, এমন প্রতিশ্রুতি নাও থাকতে পারে। এখানে যৌন তৃপ্তিটাই মুখ্য। শুধুমাত্র যৌনতা: আপনারা মাঝেই মধ্যেই ডেটিং দেন। কিন্তু যখনই দেখা হয়, তখনই সঙ্গীর মনে সেক্স করার প্রবণতা কাজ করে। তিনি কোনো না কোনো খালি বাড়িতে ডেটিং দিতে চাইবেন। অথবা বাইরে ঘোরাঘুরি করে আপনাকে নিয়ে একা হয়ে যেতে চাইবেন। খুব স্বাভাবিকভাবেই পাশাপাশি বসা ও কথা বলা চললেও একপর্যায়ে যৌনতা চলে আসবেই।

বন্ধুত্বের স্তর ত্যাগ করেছেন: ভালোবাসা শুরু হয় বন্ধুত্বের স্তর থেকে। কিন্তু সেক্স একমাত্র প্রয়োজন হয়ে দেখা দিলে বন্ধুপরায়ণতা গড়ে উঠবে না। আপনারা খুব দ্রুত চরমে পৌঁছে যাবেন। এ ক্ষেত্রে একে অপরকে যেসব আন্তরিক কথা বলবেন সেগুলো কোনো অর্থ বহন করবে না। সম্পর্কের স্থায়িত্ব চান না: আপনি কি তার সঙ্গে স্থায়ী সম্পর্ক করতে চান? প্রশ্নটি নিজেকে করুন। যদি এর জবাব না হয়, তবে বুঝতে হবে আপনি নিজেও যৌন আকাঙ্ক্ষা নিয়ে প্রেমিকের সঙ্গে সম্পর্কটাকে বয়ে নিয়ে চলেছেন। এখানে আসল ভালোবাসা নেই।

আপনার অনুভূতি শর্তাধীন: ভালোবাসা হয় শর্তহীন। কিন্তু আপনি নিজেও যখন সঙ্গীর প্রতি শুধুমাত্র যৌনতা অনুভব করবেন, তখন একটি বিশেষ ঘটনা বুঝতে পারবেন। তার সঙ্গে দৈহিক সম্পর্ক করতে হয়তো খারাপ লাগবে না। কিন্তু অন্য কারো সঙ্গে সম্পর্ক করতেও মন চাইবে। এটি ভালোবাসা নয়, যৌন আকাঙ্ক্ষা।। সঙ্গীর চেহারা আপনার কাছে গুরুত্ব রাখে: যাকে ভালোবেসে ফেলবেন তার চেহারা বা গড়ন আপনার কাছে কোনো ঘটনা নয়। কিন্তু সত্যিকার ভালোবাসা ছাড়া যদি শুধু যৌনতা থাকে, তবে প্রেমিক কতটা স্মার্ট বা তার চেহারা কেমন ইত্যাদি আপনার কাছে চাহিদা হয়ে দেখা দেবে।